প্রেম এবং পড়ুয়া মেয়ে

 কিছুদিন আগে কোথায় জানি একটা লিখা পড়েছিলাম, যেখানে লেখক “পড়ুয়া মেয়ে” এর সাথে প্রেম করার প্রতি চরম রকম উৎসাহ দিয়েছিলেন।

এছাড়াও অনেক গুলো কারনের মাধ্যমে তিনি উপস্থাপন করেছিলেন কেন একটি পড়ুয়া মেয়ের সাথে প্রেম করতে হবে। লিখাটি পড়ে কেন জানি মনে হয়েছিল লিখাটি একচেটিয়া। অনেক কিছুর সাথে ই আমি একমত হতে পারিনি । তাই লেখকের সাথে তর্কে বা সমালোচনায় জেতে নয় বরং নিজের ভিন্নমত প্রকাশ করার জন্যই লিখতে বসা যে একজন পড়ুয়া মেয়ের সাথে প্রেম করলে বাস্তবিক প্রেক্ষাপটে কি কি ধরনের সমস্যায় ভুগতে হবে । _______

লিখার শুরুতেই সকল পড়ুয়া মেয়ের প্রতি ক্ষমা প্রার্থনা করছি । আপনারা পড়া থামাবেন না বরং এই লিখাটিও পড়ুন এবং আপনাদের পড়া অব্যাহত রাখুন। এই লিখা টি হেয় করার জন্য নয়, বরং আপনাকে আর ভালোভাবে বুঝার জন্য এবং সম্ভাব্য সমস্যা গুলোর প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য । আজ একটি সমস্যা নিয়ে আলোচনা করব । সম্যসাটির নাম  “জগৎ” ।

 

 জগৎ  ঃ  

একজন পড়ুয়া মেয়ে বলতে আমি পাঠ্যপুস্তক পড়ুয়া মেয়ে বোঝাচ্ছিনা , বরং গল্পের বইকে যারা নেশার মত পড়তে থাকে তাদের উদ্যেশ্যে করা হচ্ছে । একজন পড়ুয়া মেয়ের জগৎ টা থাকে ভিন্ন । তাদের জগৎ টা হয় অনেক বড়। আমাদের পারিপার্শ্বিক জগৎ ছাড়াও তাদের মনের অভ্যন্তরে তারা আরেকটি বিশাল জগৎ নিয়ে থাকে। আপনি যখন তার বয়ফ্রেড/প্রেমিক হবেন, আপনার ঠাই কিন্তু সেই জগতে হবেনা বরং আপনি সেই জগৎ টাকে আপনার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ভাবতে শুরু করতে পারেন । কেননা সে যখন তার কল্পনার জগতে হারিয়ে যাবে তখন আপনি নিজেকে অবহেলিত বলে ভাবতে শুরু করতে পারেন। কোন একটি গল্পের বই এর বিশেষ চরিত্রের প্রতি তার থাকতে পারে দুর্বলতা , যা আপনাকে অনেক সময় এ করে তুলতে পারে ঈর্ষান্বিত। কোন উপন্যাস পড়ে হয়ে যেতে পারে তার চরম রকম মন খারাপ আর তখন আপনি তাকে আপনার সাথে খুঁজে পাবেন না , আপনি আবার নিজেকে অবহেলিত বলে ভাবতে শুরু করতে পারেন ।তার জগতের সাথে আপনি নিজেকে কোন ভাবেই খাপ খাইয়ে নিতে পারবেননা। কখনো কখনো সে কল্পনার জগৎ কে বাস্তবে নিয়ে আসার চেষ্টা করবে । উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে কোন বিশেষ উপন্যাসের বিশেষ একটি চরিত্রের সাথে সে নিজেকে অথবা আপনাকে মেলানো শুরু করতে পারে , তখন আপনার প্রিয় মানুষটি হয়ে উঠতে পারে আপনার কাছে খুব অচেনা কেউ।

 

আমি এই লিখাটি আপাতত এখানেই শেষ করতে চাই। শেষ করার আগে আবার কিছু কথা বলার আছে ।  অবসর সময়ে বই পড়ে সময় কাটানো ভালো। কিন্তু যখন বই না পড়ে কেউ থাকতে পারেনা ঠিক তখন ই সমস্যা গুলোর সূত্রপাত হয় ।

 

বিঃ দ্রঃ একজন মানুষ হিসেবে সে কেমন সেটা বিবেচনা করুন এর পর ভালবাসুন। কেউ বই পড়ে শুধু মাত্র এই জন্য তাকে ভালবাসবেন না, বরং ভালবাসার মানুষটি যদি পড়ুয়া হয়, তবে তাকে বুঝতে চেষ্টা করুন ।

ইকু সম্পর্কে

নিজের সম্পর্কে নিজের আসলে তেমন একটা কিছু বলার থাকেনা। মানুষ কে বিশ্বাস করতে ভালো লাগে। আদতে স্বপ্ন দেখা একজন মানুষ আমি, হাজার অযুত স্বপ্ন নিয়ে আমার পথ চলা। অনেক গুলো প্রিয় মানুষ নিয়ে আমি পথ চলি, খুব সহজে কাউকে আপন করে নিতে পারি। তারপরেও মাঝে মাঝে হেলাল হাফিজের মত বলতে ইচ্ছে হয়, "কেন আমার হাতের মাঝে হাত থাকেনা কেউ জানেনা।" আমার নিজস্ব একটা ভাবনার জগত আছে, যেই জগতে কি হচ্ছে সেটা আমি ছাড়া আর কেউ জানেনা। জীবন ও মৃত্যু সম্পর্কে প্রায় ই একা বসে বসে ভাবি। জীবন আমার কাছে অনেকটা রহস্যের মত, যে রহস্যের সমাধান আমি আজো করতে পারিনি। তবে মৃত্যু মনে হয় একটা অসুখ, যার ওষুধ আজ পর্যন্ত তৈরি হয়নি। আমি জ্যোৎস্না ভালোবাসি আর ভালোবাসি ভর দুপুরের সোনালী রোদ। ভালোবাসি রঙধনু আর ভালোবাসি তুমি-আমি নিয়ে লিখা সব কবিতা । ভালোবাসি কোন মেঠো পথের ধারে সবুজ মাঠে একা বসে থাকা, ভালোবাসি নীলাম্বরী শাড়ি পরা কোন এক কিশোরী আকাশ, ভালোবাসি নদীর পাড়ে বসে মাছরাঙ্গা দের উৎসব দেখা । ভালোবাসি সমুদ্র বালিয়াড়িতে উপলব্ধি করতে নিজের ক্ষুদ্রতা। ভালোবাসি অরণ্য, ভালোবাসি পাখি। ভালোবাসি রাত, ভালোবাসি রৌদ্র। ভালোবাসি দেশ, ভালোবাসি আমায়। https://www.facebook.com/iqusan
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে অনুপ্রেরণা, চিন্তাভাবনা, পাগলামি, সচেতনতা, হাবিজাবি-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

9 Responses to প্রেম এবং পড়ুয়া মেয়ে

  1. শাহরিয়ার বলেছেনঃ

    হা হা হা ! আপনি সম্ভবত সামিরা‘পুর এই অনুবাদটার কথা বলছেন !!!

    আপনি যেভাবে দেখছেন… কী জানি বিষয়টা আপনাকে এভাবে ভাবাল কেন… 😯

    শেষের “বিঃদ্রঃ” অংশটা অবশ্য ভালই লেগেছে। কিন্তু… … … 😳

    বাই দ্য ওয়ে… সবাই শুধু “পড়ুয়া মেয়ে” নিয়ে কথা বলছে ! আচ্ছা… “পড়ুয়া পুরুষ”দের কী হবে? মানে যদি কোন “পুরুষ” বই না পড়ে থাকতে না পারে, তার কী হবে? :thinking:

    😛

  2. বোহেমিয়ান বলেছেনঃ

    মূল লেখার লিংক না দিলে আপনি কী রিফিউট করতে চাইছেন মানুষ বুঝবে কীভাবে?

    তিনি উপস্থাপন করেছিলেন কেন একটি পড়ুয়া মেয়ের সাথে প্রেম করতে হবে।

    এই করতে হবে কি আপনার নিচের লাইনের মতো নাকি আরও বিনীত / নম্র ইত্যাদি?

    কেউ বই পড়ে শুধু মাত্র এই জন্য তাকে ভালবাসবেন না

    এইখানে আপনি কে কী করবে এই রকম একটা প্যাটার্নালিস্টিক এটিচ্যুড নিয়ে বসে আছেন দেখি!

    কী দেখে ভালোবাসতে হবে সেটা কে বলে দেবে?
    অনেকে অনেক কিছু দেখেই ভালবাসতে পারে। বই পড়া তার মধ্যে এমন একটি!
    শুধু মাত্র দেখতে সুন্দর বলে মানুষ ভালোবাসে, শুধু মাত্র আচরণ ভালো বলে ভালোবাসে! তাইলে বই পড়ে বলে ভালোবাসলে প্রবলেম কই?

    • ইকু বলেছেনঃ

      ভাই আমি শুরুতেই বলে দিয়েছিলাম যে আমি তর্কে যেতে চাইনা …… আমার কাছে ব্যাপার টার কিছু নেগেটিভ দিক ছিল …… প্রকাশ করে দিলাম …… নিজের বাক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে কিছু টা লিখা এই অভিমত টি …
      কে কী করবে এই রকম একটা প্যাটার্নালিস্টিক এটিচ্যুড না … এরকম হতে পারে …… হওয়াটাই অনেক স্বাভাবিক ,
      এছারাও আমি বলসি যে সব দিক বিবেচনা করে ই আগাবেন, শুধু মাত্র একটি গুনের জন্য নয় ……
      আপনার মুল্যবান বক্তব্যের জন্য ধন্যবাদ 🙂 ভালো থাকবেন 🙂

  3. তুসিন বলেছেনঃ

    সামিরা আপুর লেখাটা পড়ছিলাম।অনেকদিন পর সেই লেখার প্রতিক্রিয়া দেখে ভাল লাগল।
    ।যাই হোক বোহেমিয়ান ভাই উওরদিয়ে দিয়েছেন।:)

  4. রুহশান আহমেদ বলেছেনঃ

    আরো ডিটেইলস আশা করেছিলাম।

    • ইকু বলেছেনঃ

      আরো ডিটেইলস লিখার সাহস হয়নি …… এইটা লিখা ই মাইর খাওয়ার সমুহ সম্ভাবনা আসে …… আমার প্রিয় মানুষটি ও আবার পড়ুয়া মেয়ে কিনা 😛 😛

বোহেমিয়ান শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।