দেবদারুর ছায়া

প্রেমের সংজ্ঞা কেউ দিতে পারেনি
তাই ভুলে যাওয়া সমুদ্র পাড়ে
সেই দেবদারু টির নিচে বসে
হঠাৎ করেই যখন মনে পড়ে যায়
ভাবি, তবে এই কি প্রেম?
আর অবাক হয়ে শুনে যাই
বাতাসে ঝরে পড়া পাতার শব্দ ।
আর ভাবি,
কি দেখেছিলাম সেই পেস্তাচেরা চোখে
অনুরাগের দৃষ্টি ছিল
নাকি ছিল শুন্য নদীর স্তব্ধতা ?
আজ অব্দি তুমি উত্তর দিলেনা
ওই চোখে কি তবে শুধুই প্রশ্রয় ছিল ?
বুঝতে পারিনি সে ধুসর সন্ধ্যায়
কারন মহুয়ার গন্ধে মাতাল ছিল হৃদয়
আর দেবদারুর ছায়া এসে পড়েছিলো
ঠিক তোমার চোখের উপর ।  

 

ইকু সম্পর্কে

নিজের সম্পর্কে নিজের আসলে তেমন একটা কিছু বলার থাকেনা। মানুষ কে বিশ্বাস করতে ভালো লাগে। আদতে স্বপ্ন দেখা একজন মানুষ আমি, হাজার অযুত স্বপ্ন নিয়ে আমার পথ চলা। অনেক গুলো প্রিয় মানুষ নিয়ে আমি পথ চলি, খুব সহজে কাউকে আপন করে নিতে পারি। তারপরেও মাঝে মাঝে হেলাল হাফিজের মত বলতে ইচ্ছে হয়, "কেন আমার হাতের মাঝে হাত থাকেনা কেউ জানেনা।" আমার নিজস্ব একটা ভাবনার জগত আছে, যেই জগতে কি হচ্ছে সেটা আমি ছাড়া আর কেউ জানেনা। জীবন ও মৃত্যু সম্পর্কে প্রায় ই একা বসে বসে ভাবি। জীবন আমার কাছে অনেকটা রহস্যের মত, যে রহস্যের সমাধান আমি আজো করতে পারিনি। তবে মৃত্যু মনে হয় একটা অসুখ, যার ওষুধ আজ পর্যন্ত তৈরি হয়নি। আমি জ্যোৎস্না ভালোবাসি আর ভালোবাসি ভর দুপুরের সোনালী রোদ। ভালোবাসি রঙধনু আর ভালোবাসি তুমি-আমি নিয়ে লিখা সব কবিতা । ভালোবাসি কোন মেঠো পথের ধারে সবুজ মাঠে একা বসে থাকা, ভালোবাসি নীলাম্বরী শাড়ি পরা কোন এক কিশোরী আকাশ, ভালোবাসি নদীর পাড়ে বসে মাছরাঙ্গা দের উৎসব দেখা । ভালোবাসি সমুদ্র বালিয়াড়িতে উপলব্ধি করতে নিজের ক্ষুদ্রতা। ভালোবাসি অরণ্য, ভালোবাসি পাখি। ভালোবাসি রাত, ভালোবাসি রৌদ্র। ভালোবাসি দেশ, ভালোবাসি আমায়। https://www.facebook.com/iqusan
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে কবিতা, সাহিত্য-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

6 Responses to দেবদারুর ছায়া

  1. অক্ষর বলেছেনঃ

    আসলে কবিতা খুব একটা পড়া হয় না, তবুও পড়লাম, ভালোই লেগেছে। 🙂

  2. ইকু বলেছেনঃ

    হুম… কবিতা সবাই খুব একটা পড়েনা … আপনার ভালো লাগলো জেনে আনন্দিত হলাম… ধন্যবাদ :love:

  3. শারমিন বলেছেনঃ

    ভালো লেগেছে 😀
    আচ্ছা পেস্তাচেরা মানে কি?
    আমি না জানি না 🙁

রুহশান আহমেদ শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।