“হঠাৎ করেই”

– কি করছ?
– ভাবছি।
– কি ভাবছ?
– সেই রূপালী রাত গুলোর কথা।
– কোন রাত?
– যে রাতে মুঠোফোনে বন্ধী ছিলাম তুমি-আমি। একই হৃদয়ে স্বপ্ন দেখতাম একসাথে। তোমার চোখ ছুয়ে শপথ করে বলতাম কত কিছু।

– শপথ রাখনি কেন?
– হারিয়ে ফেলেছিলাম নিজেকে, রূপালী আলোর ধূমকেতুতে ঠিক বুঝে উঠতে পারিনি, ভেবেছিলাম তুমি হারিয়ে গেছ।
– আমি তো তোমারি ছিলাম ।
– হুম, ঠিক বুঝে উঠতে পারিনি তো ।

– কেন করলে এমন? আমাকে একটুও বোঝার চেষ্টা করনি কখনো
– যে আকাশ নিয়ে স্বপ্ন দেখেছিলাম, সুদুর উজ্জ্বল সে আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন। বিষাদী নীল যখন আঁধার হয়ে রাত্রি নামায়, তখন খুব ভয় হয়েছিল যে, চোখ খুলে দেখব তুমি নেই। তাই চোখ খুলিনি, কোথা থেকে যেন স্বপ্ন ভাঙ্গা কুয়াশা ঢেকে দিয়েছিল, ভয়ে চলে এসেছিলাম, যদি চোখ খুলে দেখি তুমি নেই।
– যদি এতই মনে পড়ে ফাগুনি রাত, ভুলগুলি ফিরিয়ে দিয়ে হাত বাড়াও না কেন?
– ইচ্ছেকৃত ভুলগুলি ছুড়ে ফেলা যায়না, তাছাড়া মাটি যে বড় উষ্ণ, ভয় হয় এতটা পথ হেটে এসেও যদি তুমি হাত ফিরিয়ে দাও।

– এত ভয় পাও কেন?
– যে বুকে জোছনার বদলে রক্তাক্ত মাংশপিণ্ড; সেখানে তো ভয় থাকবেই। যা হোক ব্যর্থতা পরাজয় সব আমারি রইলো, তুমি উৎকণ্ঠা বিহীন খোলা জানালা হবে, নির্জন ঢেউয়ে আমি সেই জানালায় হঠাৎ করেই মাঝে মাঝে কিছু হাছনাহেনা রেখে যাব। তুমি ভালোবেসে ছিলে একদিন; আমি ঋণ শোধ করে যাব সহস্র বছর। আজ বিদায়, পথে পথে আবার দেখা হবে ।

ইকু সম্পর্কে

নিজের সম্পর্কে নিজের আসলে তেমন একটা কিছু বলার থাকেনা। মানুষ কে বিশ্বাস করতে ভালো লাগে। আদতে স্বপ্ন দেখা একজন মানুষ আমি, হাজার অযুত স্বপ্ন নিয়ে আমার পথ চলা। অনেক গুলো প্রিয় মানুষ নিয়ে আমি পথ চলি, খুব সহজে কাউকে আপন করে নিতে পারি। তারপরেও মাঝে মাঝে হেলাল হাফিজের মত বলতে ইচ্ছে হয়, "কেন আমার হাতের মাঝে হাত থাকেনা কেউ জানেনা।" আমার নিজস্ব একটা ভাবনার জগত আছে, যেই জগতে কি হচ্ছে সেটা আমি ছাড়া আর কেউ জানেনা। জীবন ও মৃত্যু সম্পর্কে প্রায় ই একা বসে বসে ভাবি। জীবন আমার কাছে অনেকটা রহস্যের মত, যে রহস্যের সমাধান আমি আজো করতে পারিনি। তবে মৃত্যু মনে হয় একটা অসুখ, যার ওষুধ আজ পর্যন্ত তৈরি হয়নি। আমি জ্যোৎস্না ভালোবাসি আর ভালোবাসি ভর দুপুরের সোনালী রোদ। ভালোবাসি রঙধনু আর ভালোবাসি তুমি-আমি নিয়ে লিখা সব কবিতা । ভালোবাসি কোন মেঠো পথের ধারে সবুজ মাঠে একা বসে থাকা, ভালোবাসি নীলাম্বরী শাড়ি পরা কোন এক কিশোরী আকাশ, ভালোবাসি নদীর পাড়ে বসে মাছরাঙ্গা দের উৎসব দেখা । ভালোবাসি সমুদ্র বালিয়াড়িতে উপলব্ধি করতে নিজের ক্ষুদ্রতা। ভালোবাসি অরণ্য, ভালোবাসি পাখি। ভালোবাসি রাত, ভালোবাসি রৌদ্র। ভালোবাসি দেশ, ভালোবাসি আমায়। https://www.facebook.com/iqusan
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে কবিতা, সাহিত্য, হাবিজাবি-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

6 Responses to “হঠাৎ করেই”

  1. তুসিন বলেছেনঃ

    , কোথা থেকে যেন স্বপ্ন ভাঙ্গা কুয়াশা ঢেকে দিয়েছিল, ভয়ে চলে এসেছিলাম, যদি চোখ খুলে দেখি তুমি নেই।
    লাইনগুলোা ভাল লাগলো।

  2. অনুজ বলেছেনঃ

    পথে আবার দেখা হোক, কাল অথবা পরশু…
    🙂

  3. শারমিন বলেছেনঃ

    ভালো লেগেছে 🙂

ইকু শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।