আমি একটা সুখ-দৃশ্য দেখতে চেয়েছিলাম

আধঘণ্টা ধরে আমার নিথর দেহটি
শুয়ে আছে তক্তপোষে;
মৃত্যু ঘটেছিল ফাঁসিতে ঝুলে।
আমার দুই বাহু এখন বাঁধনহীন,
কিছুক্ষণ আগেও মুখ মুড়ে ছিল কালো-কাপড়ে;
জিবের অর্ধেকটা বেরিয়ে এসেছে-
দাঁতগুলোর গভীর আলিঙ্গনে তা নীলাভ বর্ণ ধারণ করেছে।

আমার লাশ নিতে আসেনি আমার স্ত্রী-পুত্র-কন্যা।
আসেনি স্বজন-বন্ধু-প্রতিবেশী।
আমাকে ওরা বড্ড ঘৃণা করে-
ঘৃণিত ব্যক্তির লাশ কেন নিতে আসবে?
এ-যে ভীষণ লজ্জার, চরম অপামানের!
মৃত্যু ঘটিয়েছে রিক্ততার অবসান-
আমার চেতনা ওদের নির্লিপ্ততা কারণ খুঁজতে অপারগ।
আমি একজন অভজার্ভার –
আমার কাজ নিবন্ধিত এবং সীমাবদ্ধ কেবল দেখে যাওয়াতে!

আজ আমার মেয়ের জন্মদিন-
ঐতো মা মেয়ের মুখে তুলে দিচ্ছে ব্ল্যাকফরেস্টের একটুকরো!
মেয়েটা চকলেট কেক খেতে খুব ভালোবাসে!
স্ত্রী সেজেছে অপরূপে-
ওকে আজ লাগছে ইন্দ্রাণীর মতন!
আমার কলেজে পড়ুয়া ছেলের হাতে গীটার
সবাইকে গান শুনাতে ব্যস্ত- বড় মিষ্টি কণ্ঠস্বর।
এই গানটা আমিই শিখিয়েছিলাম।
বাবার কথা কি ওর মনে পড়ছে?
কই, ওর গলাতো এতোটুকু কাঁপছে না।
হাসিমুখে গান গাইছে- বাবকে ভুলে গেছে,
অপরাধী বাবাকে স্মরণ করাও হয়তো অপরাধ!

আশ্রিতা কিশোরীর চোখ ভেজা কেন?
মাঝে-মাঝে আমি ওকে ডেকে দিতাম
আট-আনার সস্তা তালমিছরি,
মাথা নিচু করে, হাত বাড়িয়ে নিয়ে
দৌড়ে পালিয়ে যেত ও।
ঐ সামান্য মিছরি দানাগুলোতে এত মায়া মাখানো ছিল?
একজনের চোখেও পানি এসেছে-
গোটা মানব-জনম বৃথা যায়নি তাহলে।

আমি একটা সুখ-দৃশ্য দেখতে চেয়েছিলাম-
আমি দেখেছি; আর কিছু দেখতে চাইনা আমি।
সুড়ঙ্গের শেষ প্রান্তে চোখ-ধাঁধানো আলো-
চুম্বক আকর্ষণে আমি ছুটে যাচ্ছি আলোর দিকে।

হে পৃথিবীর মানুষ-
তোমার ভালো থেকো, সুখে থেকো।

অনিমেষ ধ্রুব সম্পর্কে

"You've gotta dance like there's nobody watching, Love like you'll never be hurt, Sing like there's nobody listening, And live like it's heaven on.'' অসম্ভব পছন্দ উইলিয়াম পার্কারের এই কথাগুলো! নিজের মত করেই নিজের পৃথিবীটা কল্পনা করে নিতে ভাল লাগে। ঔদাসিন্য,অলসতা শব্দ দুটি আমার সাথে বনে যায়। গভীর মনোযোগ কিংবা অসম্ভব সিরিয়াস মুড আমার কখনোই আসে না। একা অচেনা রাস্তায় অকারণে হাঁটতে ভালো লাগে, মানুষ দেখতে ভালো লাগে, ভাল লাগে কবিতা লিখতে...তবে স্বপ্ন দেখি, স্বপ্ন দেখি আমার চারপাশে থাকা মানুষগুলোর জন্য কিছু একটা করার, দেশকে কিছু একটা দেয়ার। পারব কি-না জানি না, তবুও স্বপ্ন বুনে চলেছি নিরন্তর... http://www.facebook.com/kamrul.h.hridoy.3
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে কবিতা, সাহিত্য-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

3 Responses to আমি একটা সুখ-দৃশ্য দেখতে চেয়েছিলাম

  1. তুসিন বলেছেনঃ

    কবিতাটি হৃদয় র্স্পশ করলো। 🙁 মন খারাপ হয়ে গেল।

    “আমি একটা সুখ-দৃশ্য দেখতে চেয়েছিলাম-
    আমি দেখেছি; আর কিছু দেখতে চাইনা আমি।
    সুড়ঙ্গের শেষ প্রান্তে চোখ-ধাঁধানো আলো-
    চুম্বক আকর্ষণে আমি ছুটে যাচ্ছি আলোর দিকে”

    লাইনগুলো পড়ে নস্টালজি হয়ে গেলাম।

  2. শারমিন বলেছেনঃ

    🙁 🙁

  3. রুহশান আহমেদ বলেছেনঃ

    ‘সুড়ঙ্গের শেষ প্রান্তে চোখ-ধাঁধানো আলো-
    চুম্বক আকর্ষণে আমি ছুটে যাচ্ছি আলোর দিকে।’

    তবে কি এই পৃথিবী, মানুষ, এরা অন্ধকারের বাসিন্দা?

শারমিন শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।