প্রতিযোগিতা

প্রতিযোগিতা মানুষের ভালো লাগে। সবার। প্রতিযোগিতা সম্পর্কে ধারণা হয়েছে স্কুলের শুরুতেই। কার রোল নাম্বার কত আগে, কে কত বেশি মার্ক পেয়েছে ইত্যাদি ইত্যাদি। ঐ প্রতিযোগিতাটা ভালোই ছিল। ভালো কিছুর জন্য প্রতিযোগিতা।

এরপর পরিচিত হয়েছি স্কুলের বার্ষিক ক্রিয়া প্রতিযোগিতার সাথে। তাও ভালো ছিল। পড়ালেখার পাশা পাশি কে কত একটিভ তা জানা যায়। কে কত ভালো খেলাধুলা করতে পারে, তা জানা যায়।।

মাঝে মধ্যে অভিবাকরাও আমাদের নিয়ে প্রতিযোগিতা করত। স্কুলের ফাস্টবয় এর সাথে। ঐ ছেলেটা এত্ত গুলো নাম্বার পেয়েছে, আর তুই? ঐ ছেলেটা এতক্ষণ পড়ালেখা করে, আর তুই? ঐ ছেলেটা এত ভদ্র… ইত্যাদি ইত্যাদি… এক ধরনের প্রতিযোগিতা। এগুলো ভালো ছিল না খারাপ ছিল এখনো বুঝতে পারছি না।

বিকেলে খেলতে গেলে বা স্কুল থেকে ফেরার পথে মাঝে মধ্যে একটার সাথে আরেকটার মারা মারি লেগে যেতো। কে কাকে কত বেশি মার দিতে পারত, তা হিসেব করত। ঐটা এক ধরনের প্রতিযোগিতা ছিল না?

এক সময় ভালো বাড়ি আর খারাপ বাড়ি সম্পর্কে জানলাম। যে বাড়ির ছেলেরা মুখ দিয়ে খারাপ কথা উচ্চারণ করে না, তাদের বাড়ি হচ্ছে ভালো বাড়ি। আর যে বাড়ির ছেলেরা খারাপ কথা উচ্চারণ করে, তারা হচ্ছে খারাপ বাড়ির ছেলেপেলে। খারাপ বাড়ির ছেলেরা যখন জগড়া লাগত, তখন একটা একটাকে ইচ্ছে মত খারাপ কথা বলত। এক ধরনের প্রতিযোগিতা।

আচ্ছা, রিয়েল লাইফ এর কথা বলে শেষ করা যাবে না। ভার্চুয়াল লাইফ এর কথা বলি। অনলাইনে এসে ভালো কিছু দেখব ভেবেছি। দেখেছিও। কিন্তু পাশা পাশি ভয়ঙ্কর কিছুর সাথেও পরিচিত হয়েছি। পরিচিত হয়েছি কিভাবে অনলাইনেও জগড়া করা যায়। কিভাবে একজন আরেকজনকে ইচ্ছে মত গালি দিতে পারে। দেখেছি খারাপ কথা বলার প্রতিযোগিতা।

অথচ আমরা পারতাম যে অনলাইনে ভালো করে, তার সাথে প্রতিযোগিতায় নামতে। অনেকে নেমেছেও। চুপচাপ নিজের কাজ করে যাচ্ছে। আর বাকি রা? দেখে আপসুস হয়। লজ্জা লাগে।

নিজেদের মধ্যে খারাপ কথা বলার প্রতিযোগিতাতে কিচ্ছু যায় আসে না তেমন। কিন্তু যখন গ্লোবালি চিন্তা করি, তখন আমিও তাদের মধ্যে পড়ে যাই। ঐ ছেলের পরিবর্তে তখন নিজ দেশের নাম উল্লেখ করে। যেমন উপরের উদাহরণের খারাপ বাড়ির সবাই যেমন খারাপ কথা বলে না, তেমন আরকি। মার্ক জাকারবার্গের ইমেজে আমরা যেভাবে খারাপ কথা লেখার প্রতিযোগিতায় নেমেছি, তখন বিদেশী কেউ যে খারাপ কথা লিখেছে, তার নাম উচ্চারন করবে না। বলবে বাংলাদেশের লোকেরা কত বিশ্রি ভাষায় কথা বলে। কত স্টুপিড!

জাকির হোসাইন সম্পর্কে

একজন প্রোগ্রামার। লিখতে প্রচন্ড ভালোবাসি। দুটোই। কোড এবং গল্প বা ফিকশন। পেশা হিসেবে একজন ফ্রীল্যান্সার। প্রযুক্তি নিয়ে লেখা গুলো পাওয়া যাবে আমার টেক ডায়েরীতে
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে চিন্তাভাবনা-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

2 Responses to প্রতিযোগিতা

  1. বোহেমিয়ান বলেছেনঃ

    ইতিবাচকভাবে সমাধান গুলা নিয়ে ভাবলে অনেক কিছু হতে পারে মনে হয়।
    আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার বিশাল বিশাল সমস্যাগুলা আমাদের সামনে আসতেছে।

    এইগুলা নিয়ে আমাদের দ্রুত কথা বলা দরকার।

    কী করে ভালো হবার প্রতিযোগিতা করা যায়।

বোহেমিয়ান শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।