ফিটাসের আর্তচিৎকার

আমায় কেন বাঁচাতে দিলে না?
আমি হয়তো কবি হতাম!
লিখে ফেলতাম শত-সহস্র কবিতা।
আমার বইয়ের পাতায় মুখ লুকিয়ে প্রাণভরে শ্বাস নিতে তুমি।

 

আমি হয়তো ডাক্তার হতাম!
তীব্র আঁধারে আশার প্রদীপ জ্বেলে দিতাম অসুস্থের মনে
স্টেথোস্কোপ কানে দিয়ে শুনে নিতাম তোমার বুকের সিম্ফোনী।
তুমি বলতে, ‘আমার ডাক্তার ছেলে বাড়ি ফিরলেই একসাথে ভাত খাবো।’
মাগো, আমায় কেন বাঁচতে দিলে না?

 

আমি হয়তো নভোচারী হতাম!
তুমি বলতে, ‘চাঁদের দেশে গিয়েও মাকে মনে পরবে, খোকা?’
চাঁদের বুকে আমি লিখে দিতাম ‘তোমায় বড্ড ভালোবাসি।
মাগো, আমায় কেন বাঁচতে দিলে না?

 

আমি হয়তো হতাম বাউন্ডুলেদের একজন!
সারাদিন টো-টো করে ঘুরে বেড়ানোই যাদের প্রধানতম কাজ।
আমি দিনান্তে বাড়ি ফিরে তোমার সব অনুযোগ-অভিযোগ
শুনে যেতাম-মেনে নিতাম মাথা নিচু করে।
আক্ষেপ করে বলতে, ‘নিলাজ ছেল কোথাকার!’
তোমার মাখানো ভাতটা খেয়ে নিতাম পরম তৃপ্তিতে।
মাগো, আমায় কেন বাঁচতে দিলে না?

 

আমি হয়তো হতাম জগতের অপদার্থতম ছেলেটি
গর্ব করার মতো কিছুই দিতে পারতাম না তোমাকে।
তাতে বা কি যায় আসে?
আমি শুধু তোমার ছেলে হতাম, আর কিছু না।
মাগো, আমায় কেন বাঁচতে দিলে না?
প্রাণের আলো জ্বেলে আবার কেন নিভিয়ে দিলে?
আমি ফিটাস হয়ে আজও তোমায় দেখি ঐ নক্ষত্র থেকে।

অনিমেষ ধ্রুব সম্পর্কে

"You've gotta dance like there's nobody watching, Love like you'll never be hurt, Sing like there's nobody listening, And live like it's heaven on.'' অসম্ভব পছন্দ উইলিয়াম পার্কারের এই কথাগুলো! নিজের মত করেই নিজের পৃথিবীটা কল্পনা করে নিতে ভাল লাগে। ঔদাসিন্য,অলসতা শব্দ দুটি আমার সাথে বনে যায়। গভীর মনোযোগ কিংবা অসম্ভব সিরিয়াস মুড আমার কখনোই আসে না। একা অচেনা রাস্তায় অকারণে হাঁটতে ভালো লাগে, মানুষ দেখতে ভালো লাগে, ভাল লাগে কবিতা লিখতে...তবে স্বপ্ন দেখি, স্বপ্ন দেখি আমার চারপাশে থাকা মানুষগুলোর জন্য কিছু একটা করার, দেশকে কিছু একটা দেয়ার। পারব কি-না জানি না, তবুও স্বপ্ন বুনে চলেছি নিরন্তর... http://www.facebook.com/kamrul.h.hridoy.3
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে কবিতা, সাহিত্য-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

3 Responses to ফিটাসের আর্তচিৎকার

  1. Manik বলেছেনঃ

    অনেক ভালো লিখছেন। ভালো লাগলো 🙂

  2. ভালো লিখেছেন ভাইয়া 🙂
    ‘আমায় কেনো বাঁচতে দিলে না?’ লাইনটা মস্তিষ্কে ঝড় তুলে দিয়েছে।

ফারাহ্‌ মাহমুদ শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।