লাভ (Love!)

 

১।

২০০৩ সালের কথা, তখন নটরডেম কলেজে পড়তাম। আমার একটা ছোটো ভাই অসুস্থ্য থাকার কারনে আব্বু আম্মুকে প্রায়ই ঢাকা আসতে হত। যেদিন ওনারা আসবেন সেদিন অনেক সকালে গিয়ে সদরঘাট বসে থাকতাম…এই বুঝি লঞ্চ আসে! আর চলে যাবার সময় আমিই আব্বু আম্মুকে লঞ্চে তুলে দিয়ে আসতাম…এখনো মনে পরে, লঞ্চ ছেড়ে যাচ্ছে…আম্মু কেবিনের দরজা ধরে দাঁড়িয়ে আছেন…লঞ্চটা একটু একটু করে দূরে যাচ্ছে…আরো দুরে…তাকিয়ে থাকি, একসময় আম্মুকে আর দেখি না…কপালের উপরে এক হাত দিয়ে আরেক হাতে রুমাল দিয়ে বার বার চোখ মুছতাম। একটু লজ্জাও করতো, কলেজে পড়ি, বড় হয়ে গেছি…লোকজন দেখে ফেললে কী বলবে!

২।

আমার এক বন্ধু, এখন ম্যাঞ্চেস্টারে পড়াশুনা করছে। দেশ থেকে চলে আসবার আগে প্রায় প্রতিদিন আমি আর ও আড্ডা মারতাম। আমাদের বাসা কাছাকাছি ছিলো, লালমাটিয়া এলাকায়। আমাদের বন্ধুত্বটা একটু অন্যরকম ছিলো…বিকেলে পুড়ি আর চা খাওয়া, রাতের বেলায় বাসার ছাদে গল্প করা, আবাহনী মাঠের পাশে কাদেরের দোকানে চাপ আর লুচি খেয়ে চা হাতে নিয়ে মাঠের মধ্যে হাঁটাহাঁটি করা…আরো কত কি! যেদিন দেশ থেকে চলে আসতেছি, ও আমার সাথে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত এয়ারপোর্ট ছিলো। প্লেন ছাড়ার আগে দুইজন একে অন্যকে জড়িয়ে ধরে অনেক্ষণ কান্না কাটি করি…

৩।

সেদিন ল্যাবে কাজ আমি আর আমার বন্ধু কাজ করছিলাম,ও কিছু খাবার কিনে নিয়ে আসছে সাথে করে, কাখন রুমে যাবো ঠিক নাই তাই। ও আমাকে একটা চকলেট দিলো… চকলেটটা হাতে নিয়ে হটাত করেই চোখে পানি চলে আসল…আমার ছোটো ভাই, ও একটি কঠিন রোগে আক্রান্ত। কোনো কোনো দিন ওকে একবারে ৩০টার বেশি ইঞ্জেকশন দিতে হত। ঢাকায় ওর দেখাশুনা আমিই করতাম। আমি যখন বাসার বাইরে আসতাম ও প্রায়ই মেসেজ দিয়ে ওর পছন্দের কোনো খাবার আনতে বলতো…চকলেট ওর খুব পছন্দ।

৪।

একটা মুভি আমার খুব পছন্দ, A Beautiful Mind। একজন ইকোনমিষ্ট, জন ন্যাশ এর লাইফ নিয়ে মুভিটি বানানো হয়েছে। এলিশিয়া, জন ন্যাশের স্ত্রী, MIT গ্রাজুয়েট। ৩২ বছর বয়সে জন ন্যাশ paranoid schizophrenia তে আক্রান্ত হন। এরপর প্রায় ১৫ বছর ন্যাশ মারাত্মক অসুস্থ্য ছিলেন। এই পুরো সময়টাতে এলিশিয়া তাকে দেখাশুনা করেন এমনকি একপর্যায়ে যখন ম্যাডিকেল ট্রিটমেন্টে কোনো কাজ হচ্ছিলো না, এলিশিয়ার প্রচন্ড ভালোবাসা  জন ন্যাশ কে দ্রুত সুস্থ্য হতে সাহায্য করে। মুভিটার শেষে ব্যাকগ্রাউন্ডে একটি গান বাজে, গানটির লিরিক্স এই রকম…

I will watch you through the darkness
Show you love will see you through
When the bad dreams wake you crying
I’ll show you all love can do
What love can do

I will watch through the night
Hold you in my arms
Give you dreams where none will be
I will watch through the dark
till the morning comes
All the light

I’ll take you through the night to see
the light showing us all love can be
I will guard you with my bright wings
stay till your heart learns to see
all love can be

৫।

বিদেশে আসার পর প্রথম তিন মাস অস্বাভাবিক মন খারাপ থাকত। অনেকবার ভাবছি দেশে চলে যাই…সবাইকে ছেড়ে বিদেশে থাকা সম্ভব না। কিন্তু,  Love Heals Everything… থিতু হওয়া শুরু করলাম, কয়েকজন মানুষের ভালোবাসা আবার স্বাভাবিক হতে শিখালো।

এইখানে একটা অস্বাভাবিক ব্যাপার আছে, আমি জানি না চাঁদ ঠিক কতদিন পর পর উঠে, কিন্তু আমি প্রায়ই আকাশে চাঁদ দেখি। অনেক রাতে আমার রুমে চাদের আলো এসে পরে…তখন আমি লাইট অফ করে আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকি, চাঁদের সৌন্দর্য দেখি আর ভাবি… হোয়াট ইজ লাভ বেসিক্যালি…হু ডিফাইন লাভ, ক্যান উই ডিফাইন লাভ?

ইকোনোমিক্স সব কিছু লজিক্যালি চিন্তা করতে শিখায়… চেষ্টা করি লজিক দিয়ে ডিফাইন করতে… মুহূর্তগুলো মনে করি, সদরঘাটে দাঁড়িয়ে চোখ মুছা, বন্ধুকে জড়িয়ে কান্নাকাটি করা, ন্যাশকে নিয়ে এলিশিয়ার নিরন্তর চেষ্টা করা…কিন্তু পারি না…ততপর ভাবি, Love cannot be defined… logic can never define Love, rather Love defines our logic!

আহমেদ সাবিত সম্পর্কে

অর্থনীতির ছাত্র। স্বপ্নের সাথে কথা বলি...হেঁটে বেড়াই... স্বপ্নের খোঁজে...
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে বিবিধ, স্মৃতিচারণ, হাবিজাবি-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

16 Responses to লাভ (Love!)

  1. সামিরা বলেছেনঃ

    “Love cannot be defined… logic can never define Love rather Love define our logic!”
    হুম!
    বেশ ভাল লাগলো লেখাটা। 🙂
    বিউটিফুল মাইন্ডের ঐ গানের লিরিকটাও খুব ভাল লাগলো।

    হাঁটাহাঁটি-তে চন্দ্রবিন্দু হবে ভাইয়া। ঠিক করে নিয়েন। 🙂

  2. ফেরারী পথিক বলেছেনঃ

    অনেক ধন্যবাদ! 😀

  3. নিলয় বলেছেনঃ

    খুব ভালো লেগেছে 🙂
    A beautiful mind এর গানটার লিরিক্স অসাধারণ, শেষ দুটো লাইনও 🙂

  4. ফেরারী পথিক বলেছেনঃ

    গানটা আমারও অনেক প্রিয়।
    ধন্যবাদ! 🙂

  5. দারাশিকো বলেছেনঃ

    এম এ জলিল অনন্ত ভাইয়ের নতুন সিনেমা হৃদয় ভাঙ্গা ঢেউ তে নাকি একটু পর পর থাপ্পড়ের কাহিনী – এ ওরে মারে, সে তারে 😉
    এইখানে দেখি কান্নাকাটি অবস্থা 😉

    ঢাকায় থাকতে ১৮ মাসে বাড়ি যান নাই – মনে আছে? এখন শাস্তি 🙂

    ব্যাপারনা, ঠিক হয়া যাইবে – আপনারে মিসাই 🙁

  6. সামিরা বলেছেনঃ

    অসুস্থ্য থাকার কারনে>অসুস্থ, কারণে
    মনে পরে>পড়ে
    হটাত করেই>হঠাৎ
    ইকোনমিষ্ট>ইকোনমিস্ট
    প্রচণ্ড
    মেডিকেল
    বানানগুলি একটু ঠিক করবেন ভাইয়া, প্লীজ?
    আর কিছু টাইপো আছে, সেগুলো একবার চোখ বোলালে আপনি নিজেই ধরতে পারবেন। যেমন দূর বানান, এক জায়গায় দূর লিখা, আরেক জায়গায় দুর।

    অভ্র স্পেল চেকার ব্যবহার করতে পারেন, অনেক ভুল ধরা পড়ে।
    নিচের পোস্ট দুটো দেখতে পারেন। 🙂
    http://shorob.com/?p=618
    http://shorob.com/?p=3079
    লেখাটা ভাল হয়েছে, আর বানান ভুল হলে অনেক ভাল লেখারও মান নেমে যায়।

  7. স্বপ্ন বিলাস বলেছেনঃ

    লেখাটা পড়ে মন খারাপ হয়ে গেলো। দেশ ছাড়ার কথা ভাবাটাও কেমন যেন অনেক কষ্টের, আর প্রিয় মুখগুলোকে না দেখতে পারার কথা তো ছেড়েই দিলাম……

  8. অনাবিল বলেছেনঃ

    খুব হ্রদয় ছোঁয়া লেখা। ভালোবাসা মনেহয় এমনি, আমাদের জীবনের পরতে পরতে জড়িয়ে থাকে, সাথে একটা বিষন্নতার চাদর ও রেখে যায় স্মৃতিতে।

    বিউটিফুল মাইন্ড মুভিটার কাহিনীটা শুনেছি, দেখে ফেলতে হবে। আর গানটা খেয়াল করে শুনবো…

    ভালোবাসাকে আসলেই ডিফাইন করা যায় না মনেহয়……

    • ফেরারী পথিক বলেছেনঃ

      তাইতো মনে হয়!
      “বিউটিফুল মাইন্ড মুভিটার কাহিনীটা শুনেছি, দেখে ফেলতে হবে”…ভালো ডিসিশন, আজকেই দেখে ফেলেন… 🙂

  9. নিশম বলেছেনঃ

    পরিবার, প্রিয় মানুষ – এদের ছাড়ার কথা ভাবলেই জানি কেমন লাগে 🙁 মুখে তো অনেক বলি “চলে যাবো, আর জিন্দেগীতে আসবোনা”, ঐ বলা পর্যন্তই !

    A Beautiful Mind আমার দেখা শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের একটি 🙂 মনে করিয়ে দেবার জন্য ধন্যবাদ ভাইয়া 🙂 আবার দেখব আজ-কালকের মধ্যেই 😀

    জীবনটা অনেক সুন্দর হোক, প্রিয়জনদের সাথে, এই প্রার্থনা করি 🙂

  10. ফিনিক্স বলেছেনঃ

    অসাধারণ লেখা। মনটা খারাপ হয়ে গেল যদিও।

সামিরা শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।