জাগো হে নবীন, ভিন্নভাবে সক্ষমদের জন্যে চাই সমাজ প্রতিবন্ধকতাহীন

বছর ঘুরে আবারো আসছে বি-স্ক্যানের জন্মলগ্নের সেই দিনটি। ১৭ই জুলাই। সকলের ভালোবাসা-অনুপ্রেরণায় হাঁটি হাঁটি পা পা করে বি-স্ক্যান এগিয়ে চলেছে তৃতীয় বর্ষপূর্তীর দিকে। প্রতিবারের মতোন এবারও বি-স্ক্যান এই দিনটি উদযাপনের মাধ্যমে সর্বত্র সচেতনতার বীজ বপন করতে চায়।

এবার ঠিক হয়েছে প্রতিবন্ধী তথা ভিন্নভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের জন্যে পারিবারিক এবং সামাজিক সকল প্রতিবন্ধকতা দূরীকরনে নতুন প্রজন্মের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে বি-স্ক্যান এর তৃতীয় বর্ষপূর্তী উপলক্ষ্যে আগামী জুলাই’১২ এর দ্বিতীয় সপ্তাহে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে দু’দিন ব্যাপী বিতর্ক প্রতিযোগিতা’র আয়োজন করা হবে।

“জাগো হে নবীন, ভিন্নভাবে সক্ষমদের জন্যে চাই সমাজ প্রতিবন্ধকতাহীন” স্লোগানকে সামনে রেখে অনুষ্ঠিত হতে ঢাকায় যাওয়া এই বিতর্ক প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বর্তমান প্রজন্মের নবীনদের মাঝে প্রতিবন্ধিতা বিষয়ে জাগরণ সৃষ্টি করতে চাই আমরা। যেহেতু অদূর ভবিষ্যতে এই সব তরুণেরাই এক একজন লেখক, শিল্পী, স্থপতি, শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ, অর্থনীতিবিদ হয়ে ভূমিকা রাখবে দেশের মজবুত ভিত্তি গঠনে। যাদের নিয়ে আমরা স্বপ্ন দেখতে পারি ভিন্নভাবে সক্ষম মানুষদের জন্যে বসবাসযোগ্য আগামীর বাংলাদেশের।

বর্তমান প্রেক্ষাপট নিয়ে কিছু কথাঃ

উন্নত বিশ্বে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা যেখানে অপ্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ভোগ করছে সমান অধিকার, সেখানে আমাদের দেশের কঠিন বাস্তবতা এই যে, সর্বত্রই তারা বৈষম্যের শিকার। পরিবার, সমাজ বা রাষ্ট্র — কারোরই যেন সময় নেই তাদের কথা ভাবার। নতুবা স্বাধীনতার চল্লিশ বছর পরেও নিজের দেশে তাদের লড়াই করতে হতো না নিজেদেরই অস্তিত্ব প্রমাণে! আর দশজন সুস্থ্য স্বাভাবিক মানুষের যা নাগরিক অধিকার অথচ এই দেশেরই নাগরিক প্রতিবন্ধী মানুষেরা তা থেকে হচ্ছে বঞ্চিত প্রতিনিয়ত। দুঃখজনক হলেও সত্য এদেশে আজ পর্যন্ত তাদের সঠিক পরিসংখ্যান বের করা সম্ভব হয় নি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ( World Health Organization – WHO) ও বিশ্ব ব্যাংক  (World Bank) এর ২০১১ সালের মাঝামাঝি সময়ে করা এক জরীপে আমরা জানতে পারি, বিশ্বে মোট প্রতিবন্ধী ব্যক্তি আছেন ১০০ কোটি, যা পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার ১৫ ভাগ। ঠিক এভাবেই প্রতিটি দেশের জনগোষ্ঠীর ১৫ ভাগ ধরলে বাংলাদেশের পরিসংখ্যান হয় ২ কোটি ৪০ লক্ষ।

এদিকে ১৮ই এপ্রিল”২০১০ এ জাতীয় দৈনিক সমকালের একটি নিবন্ধে অর্থনীতিবিদ ড. আবুল বারাকাত উল্লেখ করেন মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণ জয়ন্তীতে আমাদের দেশের অবহেলিত এই জনগোষ্ঠীর সংখ্যা দাঁড়াবে ৫ কোটি ২০ লক্ষতে। তার তৎকালীন গবেষণা মতে,

* প্রতি দুই থানার মধ্যে একটি থানায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তি রয়েছেন।

* প্রতিবন্ধী ব্যক্তিগণ মোটামুটি পাঁচ ধরনের প্রতিবন্ধিতার শিকার।

* এর মধ্যে ৫২ দশমিক ৫ শতাংশ (৭৯ লাখ) শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি,

* ১৫ দশমিক ১ শতাংশ (সাড়ে ২২ লাখ) দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তি,

* ১৪ দশমিক ৯ শতাংশ (২২ লাখ) বাক্-শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তি,

* ১৪ শতাংশ (১৬ লাখ) বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ব্যক্তি এবং

* ৬ দশমিক ৭ শতাংশ (১০ লাখ) বহুমুখী প্রতিবন্ধী ব্যক্তি।

আমাদের দেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রতিবন্ধী ব্যক্তি দারীদ্রসীমার নিচে বসবাস করেন। এদের মধ্যে বেশির ভাগই প্রথমেই হন পারিবারিকভাবে বঞ্চনা অথবা অবহেলার শিকার। পারিবারিক অসচেতনতার কারণেই সমাজ তাদের সহজে গ্রহণ করতে চায় না। সহপাঠীদের বৈরী আচরণ এবং অভিভাবকদের নেতিবাচক মনোভাবের কারণে প্রতিবন্ধী শিশুদের স্কুল কর্তৃপক্ষ ভর্তীতে অনীহা প্রকাশ করে। কর্মজীবনে প্রবেশ করলে সেখানে সহকর্মীদের অসহযোগিতামূলক মনোভাব ছাড়াও নানারকম বিড়ম্বনার কারণে মনোবল হারিয়ে ফেলতে থাকেন ধীরে ধীরে। চারপাশের বিরূপ পরিবেশের কারণে সামাজিক অংশগ্রহণ থেকে গুটিয়ে নিজেদের ভিনগ্রহের বাসিন্দা ভাবতে থাকতে শুরু করেন। খুব অল্প সংখ্যকই পারেন বৈরী পরিবেশে নিজেদের টিকিয়ে রাখতে। সহায়ক ব্যবস্থাগুলোর অভাবও এর অন্যতম কারণ। যেমন-

হুইলচেয়ার ব্যবহারকারী ব্যক্তিদের জন্যে সহায়ক ব্যবস্থাযুক্ত যানবাহন, সিঁড়ির পাশে র‍্যাম্প, এক্সেসিবল টয়লেটের অপ্রতুলতা।

দৃষ্ট প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মুক্ত চলাচলের জন্যে ব্রেইল বাটন ও ফ্লোর এনাউসমেন্টযুক্ত লিফট এবং রাস্তায়,  ফুটপাথে, সিঁড়ি বা বাধা যুক্ত স্থানের সর্বত্র ব্রেইল ব্লক না থাকা।

বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সমাজের সর্বস্তরে অংশ নিতে ইশারা ভাষার ব্যবহারের প্রচলন শুরু না হওয়া ইত্যাদি।

তাছাড়া ব্রেইল ও ইশারা ভাষা পদ্ধতির প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত শিক্ষক এবং প্রয়োজনীয় উপকরণসমূহের অভাব তাদের একীভূত শিক্ষা ব্যবস্থার প্রধান অন্তরায়। এখানে বিশেষভাবে উল্লেখ্য, বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এবং বিভিন্ন ধরণের বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক শিশুদের জন্যে আছে আলাদা বিশেষ স্কুলে শিক্ষা ব্যবস্থা। কিন্তু আমাদের দেশে শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিগণ সহায়ক যাতায়াত ব্যবস্থা ও প্রবেশগম্যতার অভাবে বঞ্চিত হন শিক্ষা, বিনোদন, কর্মসংস্থান ও সব ধরণের মৌলিক অধিকার থেকে। একীভূত শিক্ষা ব্যবস্থা তো বহু দূরের কথা তাদের জন্যে নেই সহায়ক ব্যবস্থা সম্বোলিত বিশেষ স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়। এদেশে সবচেয়ে বেশি বঞ্চিত হন তারাই।

বাংলাদেশের সংবিধানে সকল নাগরিকের সমান অধিকারের কথা বলা হয়েছে। এছাড়াও এই অধিকার এর বিষয়গুলোকে বহু আগেই জাতিসংঘ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিবর্গের অধিকার সনদ (Convention on the Rights of Persons with Disabilities – CRPD) এ মৌলিক নাগরিক অধিকার হিসাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। ২০০৬ সালে বাংলাদেশ ৯১তম দেশ হিসেবে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের আন্তর্জাতিক সনদ স্বাক্ষর করলেও বিগত পাঁচ বছরেও তার বাস্তবায়ন সেভাবে আমাদের চোখে পড়েনি। জাতীয় ইমারত (নির্মাণ, উন্নয়ন, সংরক্ষণ ও অপসারণ) বিধিমালা ২০০৮ থেকে প্রতিবন্ধী ব্যক্তির জন্যে সর্বজনীন প্রবেশগম্যতার বিধান প্রনয়ণ করা হয়েছে। কিন্তু প্রতিবন্ধী ব্যক্তির জন্যে ঘরে বাইরে সর্বত্র একটি শব্দ, “না”। খুব কমই তাদের জন্যে “হ্যাঁ” শোনা বা দেখা যায়। বাস্তবচিত্রটা হলো প্রতিবন্ধী বান্ধব অবকাঠামোর পাশাপাশি মৌলিক অধিকারের বিষয়গুলো গুরুত্ব পাচ্ছে না সমাজ তথা রাষ্ট্রের কাছে। এসব কারণেই বেশির ভাগেরই জীবন কাটে চার দেয়ালের নিভৃতে। অপ্রাপ্ত এই অধিকারগুলো থেকে বঞ্চিত হতে হতে অনেকটা যেনো অভ্যস্ত হয়ে উঠেছি আমরা। এখন সময় এসেছে দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের। গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা এতে মূখ্য ভূমিকা রাখতে পারে। তাদের অধিকার সম্পর্কে সাধরণ জনগণের মাঝে পরিস্কার ধারণা দেওয়া গেলেই দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন সম্ভব। আর একমাত্র সচেতনতা সৃষ্ঠির মাধ্যমেই তাদের সহায়ক যাতায়াত সুবিধা, একিভূত শিক্ষা ব্যবস্থা, কর্মসংস্থান এবং সর্বজনীন প্রবেশগম্যতাসহ প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা কাগুজে হরফ থেকে বেরিয়ে বাস্তবে রূপ নেবে বলেই আমাদের বিশ্বাস।

Convention on the Rights of Persons with Disabilities – CRPD (Bangla version)

 মূল লেখাটি বি-স্ক্যান ওয়েবসাইটে।

তথ্য সহায়তাঃ

সালমা মাহবুব, সাধারণ সম্পাদক, বি-স্ক্যান।

দৈনিক সমকাল, ১৮ই এপ্রিল”২০১০ সংখ্যা।

সাবরিনা সুলতানা সম্পর্কে

“আমার কতো দাবি! কতো চাহিদা! কিছুই পাইনা। যেদিকে হাত বাড়াই সেদিকে অন্ধকার। সব জায়গায় নিয়ন্ত্রণ। সামাজিক নিয়ন্ত্রণ। রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণ। প্রাকৃতিক নিয়ন্ত্রণ। সব নিয়ন্ত্রণে আমি বাঁধা আর গুমরে গুমরে কাঁদে আমার আশা আকাঙ্ক্ষা। ভালোবাসা!”
এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে অনুপ্রেরণা, ইতিবাচক, উদ্যোগ, সচেতনতা-এ এবং ট্যাগ হয়েছে , স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

7 Responses to জাগো হে নবীন, ভিন্নভাবে সক্ষমদের জন্যে চাই সমাজ প্রতিবন্ধকতাহীন

  1. সবার জানা দরকার এমন কিছু কথা, শেয়ার করলাম আপু…

    বিতর্ক প্রতিযোগীতা কোথায় হবে যদি জানাতেন…

  2. বোহেমিয়ান বলেছেনঃ

    শুভ জন্মদিন বিস্ক্যান! 😀

  3. জনৈক বলেছেনঃ

    শুভ জন্মদিন, বি-স্ক্যান

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।