আমাদের তুই (To The Child) – শেষ পর্ব

২৪ শে জানুয়ারি ২০১২, ১১ মাঘ ১৪১৮, ২৯ সফর ১৪৩৩, মঙ্গলবার তোর মামনির চেক আপের ডেট দিয়েছিলেন ডাক্তার। তোর মামনি আর ফুফু বাসা থেকে ডাক্তারের চেম্বারে চলে যায় , আর আমি অফিস থেকে তাদের সাথে যোগ দিলাম। ডাক্তার অনেকক্ষন চেক করার পর বলল তুই নাকি পৃথিবীতে আসার জন্য প্রস্তুত । আমরা ঠিক বুঝে উঠতে পারছিলাম না কি বলব, ডাক্তার বলেন কি ? আবার এক দিক দিয়ে ভেবে ভাল লাগছে কারন তোর মামনির এই ডাক্তার এক্সপেক্টেড যে ডেট দিয়েছিলেন সেসময় তিনি ঢাকায় থাকবেননা, অন্য একজনকে রেফার করে যাবার কথা বলেছিলেন। সো তিনি থাকতে পারছেন ভেবে আমরা খুশিই হলাম। ডাক্তার তোর মামনিকে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে যেতে বললেন।

তোর মামনিকে ভর্তি করিয়ে স্যালাইন দিয়ে দেয়া হল, ডিউটি ডক্টর জানালেন বিকেলের আগে কোন নিউজ হবার সম্ভবনা নেই। এই কথা শুনে আমি আবার অফিসে চলে আসলাম, আমার অফিস থেকে যেহেতু দশ মিনিটের পথ । সেখানে ছিল তোর ফুফু, তোর  নানিও চলে আসার কথা কিছু সময়ের মাঝে ।

অফিসে অস্হির সময় কাটাচ্ছি, তিনটের দিকে তোর মামি ফোন দিয়ে বললেন তুমি তাড়াতাড়ি আস, আর কিছু না বলেই ফোন কেটে দিলেন। আমি যাবার পর জানালেন তোর মামনিকে ওটিতে নিতে হবে তাই কিছু কাগজে সাইন করার দরকার ছিল, তিনি সব করে দিয়েছেন ততক্ষনে।

তোর মামনির পাশে গিয়ে দাঁড়ালাম। উত্তেজনায় ভরপুর একটা মুখ, উচ্ছাস- ভয় সবই আছে সেখানে। ডাক্তার জানালেন চারটার সময় তাকে ওটিতে নেয়া হবে। আমার কেমন লাগছিল সেটা আসলে আমি ঠিক বুঝতে পারছিলামনা। তোর মামনি, তুই- আমার যে সবই চায়।

তোর মামনিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, সে খুব চাচ্ছিল আমিও তার সাথে ওটিতে যায়। এ নিয়ে তোর মামনি আমার সাথে অনেক আগে থেকেই কথা বলে রেখেছে, আমাকে নাকি তার সাথে যেতে হবে, আমি বলেছিলাম উহু, রক্ত টক্ত এইসব আমি সহ্য করতে পারবোনা। তোর মামনি উপস্হিত ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করল আমাকে সাথে নিয়ে যেতে পারবে কিনা। ডাক্তার জানিয়ে দিল এটা সম্ভব নয়। তার মনটা হালকা বিষন্ন হল আমি দেখতে পাচ্ছি। তোর মামনিকে নিয়ে সিস্টাররা যাচ্ছে, তোর নানির চোখ দিয়ে টপটপ করে পানি পড়ছে, তিনি সেটা মুছতেছেন, আমার পুরো পৃথিবীটা কেমন যেন টলছিল। তোর মামনির জন্য আমার কেমন জানি লাগছিল। টেনশন, ভয় উত্তেজনায় আমি কেমন যেন হয়ে যাচ্ছিলাম, পুরো শরীর অসাড় হয়ে পড়ছিল।

চারটা তেইশ মিনিট। আমরা বাইরে সবাই অপেক্ষমান, তোর নানি দাদি দোয়া দরুদ পড়ছেন দেখেই বোঝা যাচ্ছে। এমন সময় শোনা গেল তোর কান্না, পুরো পৃথিবীকে তুই জানিয়ে দিল তোর আগমনী। ওটি থেকে একজন এসেও জানিয়ে গেল।

এ অনুভূতি কেমন আমার পক্ষে লিখে বোঝানো সম্ভব নয়, তোর দাদি জানতে চাইল তোর মামনি কেমন আছে, তারা জানাল সে ভাল আছে। আমার চোখ দিয়ে পানি চলে আসল, সবার সামনে থেকে একটু আড়ালে চলে গেলাম। নিজেকে কেমন অচেনা মনে হতে লাগল। সে সময়ের অনুভূতি টুকু কেমন ছিল সেটা এখন মনে করতে পারছিনা সেভাবে , বলা যায় আসলে সেটা লিখে প্রকাশ করতে পারছিনা । কিছুক্ষন পর আমাদেরকে ডাকা হল তোকে দেখার জন্য ।

প্রথম তোকে দেখার অনুভূতি !! নারে , আমি লিখে বুঝাতে পারবোনা, লিখে বুঝানো সম্ভব না । নিজের অস্তিত্বের এ নতুন বহিঃপ্রকাশ কাউকে বোঝানো সম্ভব না। এটা বুঝতে হলে এ প্রকৃয়ার মধ্য দিয়েই যেতে হবে। তুই যেদিন বাবা হবি কেবল সেদিনই তুই বুঝতে পারবি।

তোর দাদা আমাকে জড়িয়ে ধরল। তোর নানি দাদি একে অন্যকে জড়িয়ে ধরে তারপর শুরু করল সবাইকে জানানোর কাজ। পরিচিত সবাইকে একে একে ফোন করে জানানো হচ্ছে তোর আগমনি সংবাদ।

কিছু সময় পরে তোর মামনিকে ওটি থেকে নিয়ে আসা হল, তখনও সে ঘুমিয়ে পড়েনি, তোকেও দেয়া হল তার পাশে। সবাই আমরা তখন তোকে আর তোর মামনিকে ঘিরে। তুই চুপচাপ চোখ খুলে তাকিয়ে আছিস, তোর দাদা ভাই তোর পাশে গিয়ে আযান দিলেন। একে একে অনেকেই আসা শুরু করল তোকে দেখার জন্য ।তোর মামনি একবার তোর দিকে তাকাচ্ছে, আরেকবার আমার দিকে, আমিও তার দিকে তাকিয়ে আছি । কেউ কিছু বলছিনা কিংবা কি বলা যায় সেটাই আসলে মাথায় আসছেনা ।

পুরো সময়টাই আমি একটা ঘোরের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলাম, আমি জানিনা আমার কি করা উচিত, এদিক ওদিক হাঁটছি, কিছুক্ষন পরপর তোকে দেখছি, তোর ছবি তুলছি।

নিজের অনুভূতি নিয়ে কিছু বলা সম্ভব না হলেও তোর চাচার অনুভূতিটা দেখে খুব মজা পেলাম। সে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছে- ” কিছুক্ষন আগে আমার ভাইয়া আর ভাবির একটা ফুটফুটে ছেলে হয়েছে, আমি চাচা হয়ে গেলাম।অস্হির ব্যাপার, চাচা হবার এই ভাব নিয়ে হাসপাতালের এদিক ওদিক ঘুরে বেড়াচ্ছি ” ।

আমাদের তুই এখন আল্লাহর রহমতে আমাদের সাথে, পৃথিবীতে এর চেয়ে সুন্দর আর কিছু হতে পারেনা ।

 

সরবে ছবি এ্যাড করতে পারিনা :(:(

https://www.facebook.com/photo.php?fbid=10151209897845221&set=a.10151209887490221.817150.801295220&type=3

 

এই লেখাটি পোস্ট করা হয়েছে বিবিধ-এ। স্থায়ী লিংক বুকমার্ক করুন।

16 Responses to আমাদের তুই (To The Child) – শেষ পর্ব

  1. জ্ঞানচোর বলেছেনঃ

    ঐ অদ্ভুত টেনশনের মুহূর্তের এত স্মৃতি কিভাবে মাথায় রাখলেন? অতি স্বাভাবিক প্রবাহে আপনার চোখের পানি পর্যন্ত লেখনী, কেমন জানি অস্থির করে দিল।

    পুরো লেখাটি যখন একটা অচেনা আবেগের চূঁড়ায় তুলে নিয়ে গেছে, তখন ‘চাচা’ সাহেবের স্ট্যাটাসে কেন জানি মজা লাগলো। শব্দ করে হেসে উঠলাম। স্ট্রেসের মুহূর্ত কি না। 😛

    ছবি অ্যাড করার জন্য ছবি আপলোডের বাটন থাকে। ওখানে আপলোড দিয়ে, তারপর কার্সর জায়গামত রেখে পোস্টে অ্যাড করতে হয়। ডেভু পোস্ট কিছু আছে মনে হয়। 🙂

    কিউটি চোখগুলো দেখে অসম্ভব ভাল লাগলো। আশা করি, অনেক বড় হোক। :babymonkey:

    • শামসীর বলেছেনঃ

      চাচার ফেবুর স্ট্যাটাস দেখে আমিও হেসেছিলাম কিছুক্ষন ।

      ঐ সময়টা…………………….

      ভাল থাকবেন। দোয়া কামনায় ।

  2. মাশাল্লাহ ভাইয়া, কেন জানি এই পর্বটার জন্যই অপেক্ষায় ছিলাম, মনে হচ্ছিলো, খুব না হলেও, সেই অনুভূতিটার একটা টুকরো নিয়ে এসেছেন……

    ভালো থাকুক পিচকি ভাইয়া, আরো ছবির প্রত্যাশায়……

    • শামসীর বলেছেনঃ

      নানা ব্যস্ততায় লেখা হচ্ছিলনা, সময় করে পড়েছেন এই জন্য কৃতজ্ঞতা ভাইয়া ।

      পিচকির জন্য দোয়া করবেন ।

  3. মাধবীলতা বলেছেনঃ

    কি অদ্ভূত এক ভাল লাগা…কি অদ্ভূত অনন্য এক অনুভূতি…স্রষ্টার দেয়া এক অপার আশীর্বাদ নিঃসন্দেহে…আসলেই লিখে বলে কতটুকুই বা বোঝানো যায়…বাবু তো দেখি হেব্বি স্মার্ট, জন্ম নিয়েই পিটপিট করে তাকিয়ে ভাবছে…অনেক অভিনন্দন আর শুভকামনা রইল ভাইয়া

  4. সামিরা বলেছেনঃ

    বাবুর জন্য দোয়া। 🙂

  5. স্বপ্ন বিলাস বলেছেনঃ

    অবশেষে বাবুটা পৃথিবীতে চলে এলো :happy:

    অনেক অনেক ধন্যবাদ এতো চমৎকার একটা সিরিজ লেখার জন্য। আর, বাবুর ছবিটা দেখে অনেক ভালো লাগলো!

    সরব এ ছবি অ্যাড করার নিয়ম:
    1. Edit Post
    2. Upload/Insert লেখাটার পাশে একটা অপশন আছে add an image.
    3. ওটাতে ক্লিক করে select file
    4. এরপর সিলেক্ট করে upload হলে insert image.

  6. অনাবিল বলেছেনঃ

    সিরিজ টা শেষ হয়ে গেল! পড়তে খুব ভাল লাগতো……।

    অদ্ভুত একটা অনুভূতি, তাই না! পড়তে গিয়ে মনে হচ্ছিল সেটার ছোঁয়া পেলাম একটু হলেও……
    অনেক শুভকামনা আর দোয়া……।
    ভাল থাকুন সবাই মিলে…… 🙂

  7. ফিনিক্স বলেছেনঃ

    বাবুটার জন্য দোয়া আর শুভকামনা।

    এই পর্বটার অপেক্ষায় ছিলাম এতোদিন। 🙂

  8. শামসীর বলেছেনঃ

    শুভকামনা।

মাধবীলতা শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।