Category Archive: স্মৃতিচারণ

পরিচয়

-আমি আর্কিটেকচার বিল্ডিঙের সামনে, আপনি? -আমি কাছাকাছি। আসছি। -(কিঞ্চিৎ বিরক্ত কণ্ঠে) আপনি কোথায়? -আমি পাঁচ মিনিটের ভেতরেই আসছি। একটু অপেক্ষা করুন। রাস্তা পার হয়ে ব্যাংকের গেটের সামনে আসতেই তাকে আবারও ফোন দিলাম। সে ক্যাম্পাসে প্রথম এসেছে। তাই সব বিল্ডিং, সব গেট ঠিকমত চেনে না। -আপনি কোথায় আছেন এখন? -আপনি কোথায় আছেন সেটা বলুন। আমিই আসছি। …

Continue reading »

ছুটে চলা…

গ্র্যাজুয়েশন কমপ্লিট করলাম বেশ কয়েক মাস হয়ে গেল। সময় খুব দ্রুত কেটে যাচ্ছে। ফোর্থ ইয়ারের শেষ দিকে বেশ ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম। ল্যাব প্রোজেক্ট আর থিসিসের চাপে যখন নিজেকে আর ধরে রাখতে পারছিলাম না, তখন নিজেকে এই বলে সান্ত্বনা দিচ্ছিলাম, ‘এই তো আর কয়েকটা দিন।’ তারপর র‍্যাগের প্রোগ্রামগুলো একের পর এক চোখের পলকে শেষ হয়ে গেল। …

Continue reading »

সামিরা’পুর ফুড স্পেশাল সরব আড্ডা

শুধু খেতে হয় বলে খাই নাকি আড্ডা দিতে হয় বলেও? এই তো গেলো শুক্রবারে সামিরা’পুর হাতের রান্না খাবার লোভে অনেক দিন পর সরব পরিবার আড্ডায় সরব হলো সামিরা’পুর মায়ের বাসায়। এই ফাঁকে বলে রাখি জাকির ভাইয়া বলেছিলেন যে সরব সদস্য সবার আগে আসবে, সে একটা চকোলেট পাবে উপহার হিসেবে। আমি এখনো আমার প্রাপ্য বুঝে পাই …

Continue reading »

সহসা

হিমছড়ির সূর্যটাকে হঠাৎ মনে পড়ল। মেরিন ড্রাইভ রোড ধরে আমাদের গাড়ি ছুটে চলছিল। দুচোখ ভরে যতখুশি সমুদ্র দেখে নাও। গাড়ির মধ্যে গোটাপাঁচেক মানুষের মুখে কোন কথা নেই। একবার মনে হল, এই পথের কি কোন শেষ আছে! পরমুহূর্তেই মনে হল, কি ভাবছি! পথ শেষ না হলেই তো ভাল। দুচোখ যেমন সমুদ্রের মাঝে ডুবে আছে, তেমনি ডুবে …

Continue reading »

সবাক চেতনায় সরব

আজ ২৭শে জুলাই- সরবের জন্মদিন। জন্মদিন নিয়ে বিশেষ আগ্রহ আমার কখনোই ছিলো না। আগ্রহের সুনসান অবসান ঘটে শংকরের  ‘জন-অরণ্য’ বইয়ের নায়ক সোমনাথের দর্শন পড়ে। তাই ধরেই নেয়া যায়, এটা জন্মদিন উপলাক্ষিক কোন লেখা না। আমি আমার কিছু অনুভূতি লিখবো। যা কোন উপলক্ষ ছাড়াও বছরের তিনশত পঁয়ষট্টি দিনই লেখা যায়।   সরবের সাথে আছি দু’বছর তো …

Continue reading »

ফুলার রোডের মুক্ত হাওয়ায় শুধুই দীর্ঘশ্বাস

ফুলার রোড, টিএসসি, চারুকলা, সোহরওয়ার্দি উদ্যান, কার্জন হল, শহীদ মিনার…ভার্সিটি লাইফ শেষে এই জায়গাগুলোই সবচেয়ে বেশি মিস করব। আমরা যারা ভার্সিটি ক্যাম্পাস এলাকায় (ঢাকা ভার্সিটি/ বুয়েট/ ঢাকা মেডিকেল কলেজ) ক্লাস করি কিংবা হলে থাকি, তাদের জন্য এই এলাকা অবাধ বিচরণ ক্ষেত্র। বলতে পারেন, ভার্সিটি লাইফের ৪/৫ বছরে এই জায়গাগুলো এতটাই আপন হয়ে যায় যে আপনি …

Continue reading »

বাঙ্গালী স্বভাব এবং একজন মার্ক জাকারবার্গ

চলতি বছরে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে ভাগ্যক্রমে জাফর ইকবাল স্যারের সাথে দুপুরের খাবার খাওয়ার সুযোগ হয়েছিলো। স্যারের সাথে নানা বিষয় নিয়ে কথা হচ্ছিল। আমার এত প্রিয় একজন লেখকে কাছে পেয়ে নানা প্রশ্ন করছিলাম। স্যারকে প্রশ্ন করলাম আপনার প্রিয় খাবার কি? “আমি সবই খাই। তবে বিশেষ করে আলু ভার্ত, ডাল-ভাত, মাছ ইত্যাদি বেশি ভালো লাগে।” জবার দিল স্যার। …

Continue reading »

এই ঢাকা সেই ঢাকা…

ছোটবেলায় ছিমছাম একটা শহুরে জীবন ছিল আমাদের। সেই জীবনের গতি এখন কিভাবে এত ত্বরান্নিত হয়েছে ভাবতে অবাক লাগে। শহরে মানুষের চাপ এত বেশি ছিল না। আমাদের এলাকায় উঁচু দালান বলতে কেবল আমাদের এবং আশেপাশের আরো পাঁচ-ছয়টি দালান ছিল, বাকিগুলো ছিল কাঁচাপাকা ও অর্ধপাকা বাড়ি। আমরা ছিলাম দুই ভাই-বোন। যৌথপরিবারে বেড়ে উঠেছি। দুই চাচা, তাদের পরিবার …

Continue reading »

বাবা যখন অপারেশন থিয়েটারে পর্ব: এক

একটি মাত্র দেয়াল। এই দেয়ালের অপর পাশে কি হচ্ছে আমি জানি না। শুধু জানা অপর পাশে বাবার অপারেশন হচ্ছে। কোলন ক্যান্সার নামক এক ভয়ারহ রোগে আক্রান্ত আমার বাবা। সকাল ৯.৩০ মিনিটে বাবাকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হলো। গল্প-উপন্যাস পড়া কিংবা নাটক সিনেমায় দেখা অপারেশন থিয়েটারগুলো ছবি যেন চোখের সামনে ভাসতে থাকলো। হয়ত একটু পর ডাক্তার …

Continue reading »

দ্বৈত প্রকৃতির স্মৃতিচারণ

মেঘটা আজ বড্ড তিমির হয়ে আকাশযবনিকার রূপে সেজেছে। মনে হচ্ছে, প্রচণ্ড কষ্ট বুকে চেপে রাখতে রাখতে তা ফুলে ফেঁপে ফেটে পড়তে চাইছে তার সমস্ত উজাড় করে! গাছপালার মাঝে গুনগুনিয়ে আলাপালোড়ন চলছে ; কে কিভাবে পালাক্রমে দায়িত্ব পালন করবে, এ নিয়ে। রক্ত শিমুলের ছেয়ে থাকা গাছটি ধীরে ধীরে টকটকে লাল হয়ে যাচ্ছে মেঘের ছায়াতলের নিমিত্তে। সবুজ …

Continue reading »

Older posts «